শেষ ব্লগ গুলি

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা। নিজের মার্কেটিং ব্যবসা| নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করার কৌশল| lovemystudy.com

নিজের মার্কেটিং ব্যবসা কি।

অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা মার্কেটিং ব্যবসা?

অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে আগে জানতে হবে মার্কেটিং কি আজ কাল কার দিনে প্রায় আমরা সবাই মার্কেটিং ব্যবসা শব্দটির সঙ্গে পরিচিত এবং মার্কেটিং সম্পরকে প্রায় অনেকের ধারনা আছে, কারো কাছে মার্কেটিং নাম সুনলে মনে মনে একটি বিরক্ত সৃষ্টি হয় তারা মনে করে মার্কেটিং অনেক বেশি কষ্টকর ও জামেলা যুক্ত একটি কাজ মানুষের কাছে যেতে হবে মানুষ কে বুঝাতে হবে মানুষের ধারে ধারে ঘুরতে হবে আরো কত কি আবার কেউ কেউ আবার মার্কেটিং ব্যবসা জব টাকে প্রপেশন হিসেবে নেয় কারন তারা জানে আসলে মার্কেটিং এ তেমন কোনো জামেলা নাই এবং এ কাজে আপনি যদি একবার এক্সপার্ট হতে পারেন আপনি জব চারবেন না সিউর ধরে রাখেন। যাই হক আমি মুল বিষয় টা বলি মূলত মার্কেটিং ব্যবসা বলতে এক কথায় বুঝায় আপনি কোনো একটি পন্যো মানুষের কাছে প্রমোশন করে সেল করা, পন্যের সেল বাড়ানো এটাই মূলত মার্কেটিং কৌশল বা মার্কেটিং ব্যবসা

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা বাংলাদেশের সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা মার্কেটিং ব্যবসা

নিজের মার্কেটিং ব্যবসা কি?

এবার আসি নিজের মার্কেটিং ব্যবসা সম্পর্কে অনেকের কাছে এ শব্দটা নতুন মনে হচ্ছে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা আবার কি আবার কেউ কেউ জানেন। আসলে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা শব্দটার অনেক মানে হয় তবে আমরা আজকে সুধু একটা মানে বলবো যেটা হলো আমরা এখানে নিজের মার্কেটিং বলতে বুঝি নিজের পন্যের মার্কেটিং অর্থাৎ আপনার কাছে যে পণ্য থাকে তা কাউকে বা এস আর কে না দিয়ে আপনি নিজেই মার্কেটিং করে নিজেই সেল করবেন। ধরেন আপনার কাছে এখন অনেক ঘুলো ঘড়ি আছে আপনি কি করবেন ধরেন আপনাকে এ ঘুলো সেল করতে হবে আপনি কিভাবে সেল করবেন। চিন্তা করেন তো একজন কোম্পানির প্রতিনিদি বা এস আর সে কোম্পানির পণ্য কিভাবে সেল করে, ঠিক সেভাবে আপনাকে আপনার পণ্য সেল দিতে হবে মূলত আমি এখানে এ টোটাল বিষয় টাকে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা বলে বুঝাতে চাচ্ছি। আসা করি বুজে গেছেন নিজের মার্কেটিং ব্যবসা কাকে বলে।

নিজের মার্কেটিং ব্যবসা কাদের জন্য?

যেহেতু নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করতে বেশি সময় ও বেশি মূল ধনের ও প্রয়োজন নাই তাই বলা যায় যে কেউ এ ব্যবসা করতে পারেন তবে বিশেষ করে বলতে পারি যারা চাকরির পাশাপাশি ২-৪ ঘন্টা সময় পান তারা করতে পারেন বা যারা বেকার আছেন তারা ফুল টাইম দিয়ে এ মার্কেটিং ব্যবসা করতে পারেন তবে এ ব্যবসায় সব চাইতে সহজে করতে পারেন পার্ট টাইম হিসেবে স্টুডেন্ট বা ছাত্র/ছাত্রিরা কারন তারা তাদের পড়া লেখার পাশাপাশি অনেক সময় পায় তারা চাইলে সে সময় টাকে কাজে লাগিয়ে এ ব্যবসা করতে পারে কারন এখানে বেশি বিনিয়োগ দিতে হবেনা সময় ও বেশি দিতে হবেনা রিস্ক ও কম থাকে লস হওয়ার তাই তারা চাইলে অনায়াসে এ ব্যবসা করতে পারে, তবে আরেকটি বিষয় যারা ব্যবসা করবেন ভাবতেছেন কিন্তু বিনিয়োগ না করতে পারায় ব্যবসা আসতে পারতেছেন না তাদের জন্য এটা একটা সুযোগ হতে পারে ছোটো থেকে বড়ো হতে পারবেন আপনি জানেন আপনি চাইলে ৩০,০০০ টাকা দিয়ে এ মার্কেটিং ব্যবসা যদি করতে পারেন মাস শেষে আপনার কাছে অন্তত ১০,০০০+ টাকা থাকবে তাই বলা যায় এ ব্যবসা ফুল টাইম করা যায় আপনি চাইলে এ মার্কেটিং ব্যবসা করে ও আপনার ক্যারিয়ার করতে পারেন তবে একটা জিনিস আমরা জানি আমাদের সকল কাজে আমরা চাকরি করি বা ব্যবসা করি সব সময় সততার সঙ্গে করতে হবে আরেকটা জিনিস মনে রাখবেন সৎ ভাবে ব্যবসা করে খুব দ্রুত বড়ো লোক হতে পারবেন না তবে একদিন সফল হবেন তার জন্য আপনাকে ধরয ধরতে হবে, সময় দিতে হবে, পরিশ্রম করে যেতে হবে আর নিজের কনফিডেন্স ধরে রাখতে হবে মনে করতে হবে আপনি একদিন সফল হবেন তাহলে পারবেন আপনাকে কেউ আটকাতে পারবেনা সফল হতে তাই বলবো সৎ ইচ্ছা থাকলে কঠিন মনোবল থাকলে সুরু করে দেন সফলতা আসবে সুরু করুন।

নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করে ক্যারিয়ার?

অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা বর্তমানে এটা অন্যতম উপরে বলেছি আপনি চাইলে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করে ক্যারিয়ার করতে পারেন আসা করি আপনি এতক্ষনে বুঝে গেছেন এখানে আপনার ক্যারিয়ার আছে কি না আপনি একবার চিন্তা করে দেখেন তো অল্প পূঁজি দিয়ে আজ কাল ভালো কি ব্যবসা করা যাবে কোথায় আপনি কি সে সুযোগ পাবেন, আবারো বলছি যে কেউ চাইলে এ মার্কেটিং ব্যবসা করতে পারবে এখানে তার ক্যারিয়ার ঘরে নিতে পারবে তবে কেউ আবার আমার কথা সুনে আজকে সুরু করে দিবেন কালকে লস খাবেন পড়ে বলবেন আমার কথায় লস খাইছেন। আমি আপনাকে যুক্তি দিয়ে মার্কেটিং ব্যবসা করার আইডিয়া দিতে আসছি এইরুকুম হাজারো আইডিয়া পাবেন অনেক জায়গায় তবে আমি আপনাকে বলবো যাই করেন যে ব্যবসাই করেন আপনার কাছে যেটা ভালো লাগে সেটা করেন যেটা করলে আপনার মনে হচ্ছে আপনি সফল হতে পারবেন আপনি সেটাই করবেন তবে হে সবার মতামত নিবেন কিছু ভালো ব্লগ পরবেন ব্যবসা রিলেটেঢ তাহলে আপনার আইডিয়া হয়ে যাবে। আরেকটি বিষয় যে কাজ এ করেন না কেন বা যে ব্যবসা করেন না কেনো আগে রিচারজ করুন জানুন পরিপূর্ণ জ্ঞান অর্জন করুন তারপর সুরু করুন সফল হবেন।

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা মার্কেটিং ব্যবসা

নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করতে কি কি প্রয়োজন?

নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করতে গেলে আপনার বেশি কিছু প্রয়োজন নেই বললে চলে তবে আপনাকে একটি সঠিক প্লান তৈরি করে নিতে হবে বা কিছু কৌশল জানতে হবে যেমন

  • ১। সর্বপ্রথম আপনাকে অল্প কিছু মূলধন জোগাড় করে নিতে হবে তা হতে পারে ২০,০০০ টাকা থেকে শুরু করে ৫০,০০০ টাকা বা তার ও বেশি সেটা আপনার ব্যবসা আর আপনার অবস্তার উপর নিরবর করবে কেউ চাইলে ৫,০০০ টাকা বা তার ও কম দিয়ে ও করতে পারবেন সেটা একান্তই আপনার পারসোনাল বেপার,

  • ২। কি পণ্য নিয়ে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করতে চাচ্ছেন তা আপনাকে সিলেক্ট করে নিতে হবে পণ্য সিলেক্ট করার সময় একটা বিষয়ই মাথায় রাখবেন তা হলো আপনার সিলেক্ট করা পণ্য বাজারে কেমন চলে গ্রাহক কেমন চাচ্ছে আপনার প্রোডাক্ট তা খেয়াল করে পণ্য সিলেক্ট করবেন যেটা আপনার জন্য সহজ হবে সেটাই করবেন এই কৌশল টা সবার আগে কমপ্লিট করে নিবেন।

  • ৩। পন্যের বাজার ধর দেখা আপনি কি সে পণ্য দিয়ে আজ ও ব্যাবসা করতে পারবেন আপনার টার্গেট কি পুরন হবে তা দেখতে হবে এটা একটা মার্কেটিং ব্যাবসার কৌশল।

  • ৪। আপনি আপনার পণ্য কিভাবে সেল করবেন তা সিলেক্ট করবেন কিভাবে সেল করলে আপনার ইনকাম ভালো হবে সে দিকে ও খেয়াল রাখবেন আরো দেখবেন কিভাবে সেল করলে বেশি সেল হবে

  • ৫। পণ্য কোথায় থেকে কালেকশন করবেন (যেখান থেকে কম রেটে পাওয়া যায় সেখান থেকে কালেকশন করবেন) ব্যাবসার কোশল

  • ৬। সব চাইতে যেটা বেশি প্রয়োজন তা হলো অদম্য সাহোস, মানোশিক শক্তি, বিশ্বাস , সততা, অনেক বেশি পরিশ্রম মানুষের ভালোবাসা।

নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করতে প্রোডাক্ট কিভাবে বাছাই করবেন?

প্রোডাক্ট বাছাই করার ক্ষেত্রে আপনাকে যেটা লক্ষ রাখতে হবে তা হলো আপনার টার্গেট করা প্রোডাক্ট বাজারে চাহিদা কেমন বর্তমানে এবং ভবিষ্যৎ এ কেমন থাকবে, আপনার সিলেক্ট কৃত প্রোডাক্ট সহজ লভ্য কিনা তা দেখতে হবে সহযে আপনি কাস্টমার কে দিতে পারবেন কিনা আপনার পরিশ্রম কেমন হবে এসব বিষয় ঘুলো মূলত দেখতে হবে তো এবার আসি কি কি প্রোডাক্ট নিয়ে আমরা এ মার্কেটিং ব্যবসা করতে পারি আমি আপাদের কে কয়েকটি প্রোডাক্ট সম্পরকে বলবো এ চাড়াও আরো অনেক প্রোডাক্ট আছে আপনারা চাইলে অন্য প্রোডাক্ট নিয়ে ও ব্যবসা করতে পারেন।

  • ১। ইলেকট্রনিক্স প্রোডাক্ট, কারন বর্তমান বিশ্বে ইলেকট্রনিক্স প্রোডাক্ট এর চাহিদা অনেক বেশি দিন দিন মানুষের চাহিদা বাড়তেছে এবং সামনে ও বাড়বে এটা সিউর ধরে রাখেন, আবার এখানে আপনার প্রফিট ও ভালো পরিমান হবে সহজে পাওয়া যায় আপনার জন্য সহজ লভ্য, খুব সহজে সেল করতে পারবেন তেমন সমস্যা হবেনা তাই ইলেকট্রনিক্স প্রোডাক্ট ও আপনার চয়েস হতে পারে। তবে একটি বিষয় ইলেকট্রনিক্স প্রোডাক্ট এর ক্ষেত্রে মানুষের বিশ্বাস খুব কম থাকে আপনাকে সঠিক ঘুনগত মানের পণ্য কাস্টমার কে দিতে হবে না হয় আপনি ব্যাবসায় বেশিদিন থাকতে পারবেন না তাই লক্ষ রাখবেন যেনো কাস্টমার আপনার প্রতি বিশ্বাস না হারায়।

  • ২। মোবাইল এক্সেসরিজ আপনার চয়েস হতে পারে, মোবাইল এক্সেসরিজ কে কেনো আমি বললাম আপনি একবার চিন্তা করে দেখেন না আজ কাল মোবাইল এক্সেসরিজ এর চাহিদা দিন দিন কেমন বাড়তেচে বা ভবিষ্যতে যে বাড়বেনা কেউ তা বলতে পারবে, অনেক বেশি চাহিদা মোবাইল এক্সেসরিজ এর আমার দেখা অনেকে এ কাজ করে থাকে তারা কেউ স্টুডেন্ট আবার কেউ ফুল টাইম এ কাজ করতেছে অনেক ভালো প্রফিট ও করতেছে আবার আপনি খেয়াল করে দেখবেন মোবাইল এক্সেসরিজ এর পাওয়ার ক্ষেত্রে অনেক টাই সহজ লভ্য সেল করতে ও তেমন একটি কষ্ট হবেনা তাই আমি আপনাকে চয়েস হিসেবে মোবাইল এক্সেসরিজ এর কথা বলতেছি মার্কেটিং ব্যবসার জন্য এটা আপনার ভালো চয়েস হতে পারে।

  • ৩। এল ই ডি বাল্ব এটা ও ইলেকট্রনিক্স প্রোডাক্ট এর মধ্যে পড়ে তার পর ও এটা এমন একটি প্রোডাক্ট যা সব সময় চলে আর চলবেই আমার দেখা এক বড়ো ভাই ওনি একটা চাকরি করে মাসে ১০,০০০ টাকা সেলারি পায় দিনে ২ ঘন্টা সময় দিয়ে মাসে তিনি আরো প্রায় ১০,০০০ টাকা ইনকাম করে ( কেউ ভাব্বেন না আমি রাস্তায় এল ই ডি ভাল্ব বিক্রির কথা বলতেছি) এটাও আপনার জন্য সহজ লভ্য, সেল এক্টিভিটি ও ভালো প্রফিট ও আছে।

  • ৪। কসমেটিক্স আইটেম হতে পারে আপনার ৪ নাম্বার চয়েচ আমি এই কারনে কসমেটিক্স আইটেম কে ৪ নাম্বারে রাখতেছি যার কারন হচ্ছে আপনি চিন্তা করলে বুজতে পারবেন কসমেটিক্স আইটেম এর চাহিদা কেমন অতিতে ছিলো বর্তমানে আছে ও ভবিষ্যতে ও থাকবে আপনি জানেনা এখানে সব থেকে বেশি প্রফিট আয় করতে পারবেন যদি আপনি এক্সপার্ট হতে পারেন, তবে আপনার জন্য কসমেটিক্স আইটেম সহজ লভ্য নয় আপনি চাইলে যেখানে সেখানে পাবেন না কসমেটিক্স আইটেম এটা পাওয়ার জন্য কিছু যায়গা রয়েছে আপনাকে সেখান থেকে নিয়ে আসতে হবে আর বাকি সব কিচুই পারফেক্ট।

  • ৫। অর্গানিক আইটেম ও হতে পারে আপনার চয়েচ এখানে অর্গানিক আইটেম বলতে আমি বুঝাতে চাচ্ছি ধরেন যেমন, মধু, ফল, বিভিন্ন ফল, ফুল, ওষুধ এর আইটেম, এ চাড়া ও হাজার হাজার অর্গানিক আইটেম আছে যা আমাদের হাতের নাগালে পাওয়া যায়না কিন্তু সবাই খুজে তাই আপনার এটা চয়েচ হতে পারে কারন এখানে ভালো প্রফিট ও সেল পাবেন পুজি ও অনেকটাই কম, তবে এখানে রিস্ক আছে যেমন কিছু পণ্য নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে না সেল দিতে পারলে তা নষ্ট হয়ে যাওয়ার সম্বাবনা থাকে তাই আপনাকে সধা সতর্ক থাকতে হবে।

  • ৬। কিডস আইটেম এটা কে ও চয়েচ হিসেবে নিতে পারেন আপনি জানেন বড়ো বড়ো মার্কেট প্লেস ঘুলোতে যে সকল প্রোডাক্ট সেল হয় তার মধ্যে বেশির ভাগ প্রোডাক্ট হচ্ছে কিডস আইটেম আমাদের দেশে ও কিডস আইটেম অনেক ভালোই চলে তাই আপনি চাইলে কিডস আইটেম নিয়ে ও ব্যাবসা করতে পারেন এখানে রিস্ক নাই বললে ও চলে পণ্য নষ্ট হবেনা সেল দেরিতে হলেও সমস্যা নাই।

[করোনা কালে যারা চাকরি খোঁজতেছেন তাদের জন্য? ]

কিভাবে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করবেন?

এতোক্ষন তো আমরা জানলাম অনেক কিছুই নিজের মার্কেটিং ব্যবসা কি মার্কেটিং ব্যবসা কাদের জন্য কে কে করতে পারবে, নিজের মার্কেটিং ব্যবসায় ক্যারিয়ার, চাকরি এবং এ ব্যাবসা করতে গেলে কি কি প্রয়োজন আরো জানলাম মার্কেটিং ব্যবসা সুরু করার জন্য কি পণ্য দিয়ে ব্যবসা সুরু করতে পারেন বা কিভাবে প্রোডাক্ট সিলেকশন করতে পারেন এ চাড়াও ভালো দিক খারাপ দিক সহ আরো অনেক কিছু।

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা মার্কেটিং ব্যবসা

কিভাবে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করবেন

তো এবার আসি কিভাবে নিজের মার্কেটিং ব্যবসা করবেন আমরা চাইলে এ মার্কেটিং ব্যবসা দুই ভাবে করতে পারি প্রথম টি হল

১, মার্কেটিং ব্যবসা করার জন্য আমাদের মূলধন যোগাড় করে নিলাম, কি পণ্য নিয়ে ব্যবসা করবো তা ও ঠিক করে নিলাম, ধরেন আমরা ইলেকট্রনিক্স সামগ্রি নিয়ে এ ব্যাবসা করতে চাচ্ছি তাহলে সর্বপ্রথম ৪-৫ বা যা কয়টি হোক ইলেকট্রনিক্স সামগ্রি নিলাম ধরেন এল ই ডি, চার্জার, সহ আরো কয়েকটি পণ্য আমি সিলেকশন করে নিবো এরপর আমি এ পণ্য ঘুলোর একটি কপি অথবা প্রতিতি পন্যের একটি করে মেগাজিন নিবো যেখানে পন্যের সকল তথ্য দেওয়া থাকবে, এর পর এ সকল পণ্য আমি কালকশন করে নিবো বা যে কোনো একটি বা দুইটি পণ্য নিয়ে ছোটো একটি ডিলার ও নিতে পারি ডিলার না নিতে পারলে ও সমস্যা নাই আমরা সকল পণ্য পাইকারি বাজার থেকে নিবো এর পর সেল দিবো এভার ভাবুন কিভাবে সেল দিবেন আপনার তো দোকান নেই কেউ আপনাকে চিনে ও না কার কাছে পণ্য সেল দিবেন টেনসান নিবেন না সুনুন ভালো করে পড়ুন, ধরেন আপনি ১০০ পিচ মোবাইল পাইকারি ৯০০ টাকা করে নিছেন আবার কিন্তু আপনি এইটা পাই কারি সেল দিবেন বিভিন্ন দোকানদার দের কাছে দোকানদার রা কিন্তু বেশির ভাগ সময় এই রুকুম আমাদের মতো কারো কাছ থেকে পণ্য নিয়ে সেল করে থাকে ধরেন ১টি এল এ ডি লাইট দোকানে পাওয়া যায় ৮০ টাকা পাইকারি মার্কেটে পাওয়া যায় ৬০ টাকা আপনি তা ৬০ টাকা দিয়ে কিনে নিবেন এর পর দোকানদার এর কাছে ৬২+ সেল করে দেন আপনার থেকে দোকানদার নিবে আপনার সেল এবাবে হতে থাকবে ধরেন আপনি মাসে ২০০০পিচ এল এ ডি সেল করলেন আপনার যদি সকল খরচ বাদ দিয়ে প্রতি পিচ এ ২ টাকা করে থাকে দেখুন তো আপনার মাস শেষে একটা ইনকাম হচ্চে কিনা, এখানে আমি আপনাকে সুধু কিছু উদাহরন দেখালাম আসলে আপনি চাইলে আরো বেশি সেল দিতে পারবেন যদি কাজ করেন তবে এখানে যে কোনো পণ্য হতে পারে। বিষয় টা একধম সহজ,

  • ১-পণ্য পাইকারি কিনে নাও,
  • ২-দোকানে আবার পাইকারি সেল করে দাও,

আবার এ ব্যাবসা টা আরো একটি ভাবে করা যায় সেখানে আপনার ইনভেস্ট ও কম আবার চাইলে একসাথে অনেক ঘুলো পণ্য নিয়ে ব্যবসা করতে পারেন খুব সহজে,

২। তার জন্য এখানে আপনাকে কিছু কাজ করতে হবে কিছু পণ্য সিলেক্ট করেন তারপর একটা অর্ডার রিসিট বই বানিয়ে পেলুন একটি একটি করে ভিবিন্ন দোকনে জান আপনি যে পণ্য গুলো সেল দিবেন তার অর্ডার নিবেন যদিও আপনার কাছে পণ্য গুলো নেই তারপর ও অর্ডার নেন সকাল থেকে সনদা পর্যন্ত অর্ডার নিলেন এর পর সারাদিনের অর্ডার একসাথে করে সকল পণ্য কিনে পেলুন বারতি বেশি কিনার দরকার নাই যা অর্ডার হইছে তা কিনুন এর পর এসে অল্প সময়ের মধ্যে ডেলিবারি দিয়ে দেন এ পদ্দতি ও সহজ ইনভেস্ট ও কম

  • ১- অর্ডার কমপ্লিট করে,
  • ২-পণ্য হাতে নিয়ে ডেলিবারি দিয়ে দেন

ব্যাস সহজ কাজ সেল এর উপর বিত্তি করে ইনকাম চলে আসবে মাস শেষে। একবার চিন্তা করে দেখুন একধম সহজ একটা পদ্দতি যদিও আপনার কাছে একটু কঠিন মনে হতে পারে তবে দেখেন ব্যবসা করা টা আসলে এতো বেশি সহজ না তবে আপনি চাইলে এ ব্যবসা করতে পারেন আসে পাশে খবর নিয়ে দেখতে পারেন অনেক মানুষ এভাবে তাদের জীবিকা চালাচ্ছে।[CV নিয়ে সকল প্রশ্নের উত্তর একসাথে জানতে এখানে ক্লিক করুন। ]

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা বাংলাদেশের সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা মার্কেটিং ব্যবসা [স্মৃতি শক্তি কেন হারায় জেনে নিন|]

পণ্য কোথায় পাবেন?

দেখেন সকল পণ্য সকল জায়গায় পাওয়া যায়না আপনাকে সব কিছু খুজে নিতে হবে তবে মোবাইল এক্সেসরিজ সমুহ দেশের প্রায় সকল অঞ্চলে পাওয়া যায় পাইকারি বাজার ও থাকে একটু খবর নিলে পেয়ে যাবেন তাদের ঠিকানা তবে ঢাকা ও চিটাগাং এ ভালো হয় আবার কিছু অর্গানিক পণ্য সব জাইগায় পাওয়া যায়না তাই আপনাকে খুজ নিতে হবে। অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা করতে হলেতো একটু কষ্ট করতেই হবে।

মার্কেটিং ব্যবসা[৫০ টি CV-সিভি ফরম্যাট ফ্রিতে ডাউনলোড করুন]

শেষ কথা?

এই মার্কেটিং ব্যবসা বিষয় সকল আইডিয়া আমি নিজে লিখলেও এমন মার্কেটিং ব্যবসার সাথে হাজারো মানুষ জড়িতো, আসে পাশে তাকালে দেখতে পাবেন তাদের, আরেকটি বিষয় সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনটি এটা বলাতো কঠিন যে কারো জন্য তবে এটা যে অল্প পুজিতে বর্তমানে লাভজনক ব্যবসা তাতে কোনো সন্দেহ নেই। ব্যবসার বিষয় যদি কোনো ধরনের মতামত থাকে জানাবেন অনেকের কাছে এ ব্যবসার আইডিয়া খারাপ লাগতে পারে আমি বলবো আপনারা দয়া করে দূরে থাকুন। আর আপনাদের যদি কোনো ব্যবসার কৌশল জানা থাকে আমাদের জানান আমরা সে সব ব্যবসায়িক কৌশল মানুষের কাছে তুলে ধরবো

মার্কেটিং ব্যবসা

কোন মন্তব্য নেই

ধন্যবাদ আপনাকে কমেন্ট করার জন্য শিগ্রই আপনার কমেন্ট এর উত্তর জানিয়ে দেওয়া হবে।